পাঠকের চিঠি

অনাথ শহর ঢাকা

  

পিএনএস (মোস্তফা মামুন) : কলম্বোতেই সম্ভবত, একবার বেড়াতে গিয়ে আমাদের এক সহকর্মীর মানিব্যাগ হারিয়ে গেল। তাতে ডলার আছে অনেক, কাজেই ফিরে পাওয়ার কোনো সম্ভাবনাই কেউ দেখতে পাচ্ছে না। একজন শুধু একটু দেখতে পেল। ক্ষীণ গলায় বলল, ‘কাল আমরা ওই জায়গায় গিয়ে আবার খুঁজে দেখতে পারি। একটা সম্ভাবনা আছে।’‘সম্ভাবনা আছে! কিভাবে?’ আমরা বেশ বিস্মিত।‘এটা তো আর আমাদের ঢাকা শহর না। টাউট-বাটপাড়ের সংখ্যা অত বেশি হওয়ার কথা না।’নিজের শহরকে এমনভাবে উপস্থাপন করা একটা লজ্জার ব্যাপার। আমরা কেউ লজ্জা পেলাম না। বরং

কোটা সংস্কার : জুতার মালা, ফুলের মালা

  

পিএনএস (আসিফ নজরুল) : রবার্ট ব্রাউনিংয়ের ‘দ্য প্যাট্রিয়ট’ নামের একটা কবিতা আমরা পড়তাম নবম শ্রেণিতে। প্যাট্রিয়ট বা দেশপ্রেমিক যুদ্ধনায়ক বীরের বেশে নগরীতে প্রবেশ করে। কিন্তু ভুল-বোঝাবুঝিতে তার পতন ঘটে নির্মমভাবে। মানুষের ধিক্কারে তার গ্লানিময় প্রস্থান হয় সেই নগরী থেকেই। ফাঁসিকাষ্ঠে ঝোলানোর যাত্রাপথে তার মনোলগই হচ্ছে ব্রাউনিংয়ের বিখ্যাত কবিতা ‘দ্য প্যাট্রিয়ট’।এই কবিতা এখনো প্রাসঙ্গিক বিশ্বব্যাপী। প্যাট্রিয়টের সঙ্গে বহু বরেণ্য রাজনীতিকের মিল খুঁজে পাওয়া যায় বিভিন্ন সময়ে। তবে এর ঠিক উল্টোও যে

রাজনৈতিক সংস্কৃতি : নামে কত কী আসে যায়!

  

পিএনএস (মহিউদ্দিন আহমদ) : স্কুলে আমাদের দ্বীনিয়াতের এক শিক্ষক একটি সংস্কৃত শ্লোক প্রায়ই আওড়াতেন। তার মর্মার্থ হলো, মানুষের চিত্ত-বিত্ত, জীবন-যৌবন সবই চলে যাবে, থাকবে শুধু যশ ও কীর্তি। অর্থাৎ ভালো কাজ করলে সেই কাজ থেকে যাবে, মানুষ তাঁকে মনে রাখবে। জীবৎকালে মানুষ অনেক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। তাঁর মৃত্যুর পরও মানুষ তাঁকে মনে রাখে। কারণ, ওই প্রতিষ্ঠান মানুষের অনেক উপকারে আসে।কোনো প্রতিষ্ঠান বা স্থাপনা তৈরির সময় কারও কারও মনে একধরনের পরিমিতিবোধ কাজ করে। তাঁরা প্রিয়জনের নামে অনেক স্থাপনা তৈরি করেন,

একে দেশ মনে হয় না, মনে হয় পাগলের আখড়া

  

পিএনএস ডেস্ক: বাংলাদেশের পর্যটন মন্ত্রী সম্প্রতি বলেছেন, ইসলামিক ট্যুরিজম সিটি হিসেবে ঢাকাকে বেছে নেওয়া হতে পারে । চমৎকার। মুসলমানরা সারা বিশ্ব থেকে ঢাকায় আসবে ইসলামের ঐতিহ্য দেখতে। হাজারো মসজিদ দেখতে, হাজারো মাদ্রাসা দেখতে। টুপি বোরখা আর হিজাব পরা লাখো মুসলমান দেখতে। কোরান, হাদিস, তসবিহ আর জায়মানাজের দোকান দেখতে। মসজিদের মাইক থেকে একযোগে আযান বেরিয়ে ঘুমের মানুষদের কী করে ভোরবেলায় জাগার আগেই জাগিয়ে দেয়, দেখতে। ইসলামিক ট্যুরিস্টদের নাস্তিকহত্যার জায়গাগুলো তো দেখাতেই হবে। যেসব জায়গায়

সংবিধানের সমতার ধারণার সঙ্গে কোটা বাতিল অসামঞ্জস্যপূর্ণ: শাহদীন মালিক

  

পিএনএস ডেস্ক: কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত সংবিধানে বিদ্যমান প্রতিশ্রুতির সঙ্গে অসামঞ্জস্যপূর্ণ বলে মন্তব্য করেছেন সংবিধান বিশেষজ্ঞ ও বিশিষ্ট আইনজীবী ড. শাহদীন মালিক।বৃহস্পতিবার একটি গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ মন্তব্য করেন।ড. শাহদীন মালিক বলেন, সংবিধানে সব নাগরিকের সমতা নিশ্চিতের জন্য বলা হয়েছে। তিনি সংবিধানের ৭-এর (২) অনুচ্ছেদ উল্লেখ করে বলেন, কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত সংবিধানে বিশেষ ব্যবস্থা রাখার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, তার সঙ্গে অসামঞ্জস্যপূর্ণ। তিনি বলেন, চাকরি

১০ এপ্রিল ১৯৭১ : রক্তের অক্ষরে লেখা একটি তারিখ

  

পিএনএস (সৈয়দ আবুল মকসুদ) : প্রতিটি জাতির ইতিহাসে রেড লেটার ডে বা লাল কালিতে লেখা কোনো কোনো তারিখ থাকে। রেড লেটারকে আমরা বাংলা করেছি রক্তাক্ষরে লেখা দিন। বাঙালির ইতিহাসে আক্ষরিক অর্থেই রক্তাক্ষরে লেখা একটি দিন ১০ এপ্রিল। বাঙালি এই দিনে এমন এক প্রত্যয় ঘোষণা করে, যা বদলে দেয় তার হাজার বছরের ইতিহাস।১৯৭১-এর ২৫ মার্চের পরবর্তী দুই সপ্তাহ বাংলাদেশের মানুষ সীমাহীন অনিশ্চয়তার মধ্যে ছিল। একদিকে পাশবিক শক্তির কবল থেকে মুক্তির আকাঙ্ক্ষায় যার যা আছে তা–ই নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলা, অন্যদিকে

সরকারি চাকরিতে হলে মন্ত্রিসভায় কেন কোটা দেয়া যাবে না: প্রশ্ন আসিফ নজরুলের

  

পিএনএস ডেস্ক: মন্ত্রীসভায় কোটা দাবি করে নিজের ফেসবুক পেজ-এ একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল।তিনি তার স্ট্যাটাসে লিখেছেন- একটা কাজ করলে কেমন হয়। আমরা দাবী তুলি, সংসদ এবং মন্ত্রিসভায় ৩০ শতাংশ সদস্যকে নিতে হবে মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারগুলো থেকে। সরকারী চাকরীতে কোটা দেয়া গেলে এসব জায়গায় কেন দেয়া যাবে না? তাদের যুক্তিই যদি সঠিক হয় তাহলে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানানোর এটাই হবে শ্রেষ্ঠ উপায়।তিনি আরো লিখেছেন, কোটা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী। আমাদের

সমাজ : মানুষ গাধা হতে চায় না, বানাতে চায়

  

পিএনএস (আফজাল হোসেন) : গাধা লিখতে দুটো অক্ষর আর মানুষ লিখতে লাগে তিনটা। মানুষের চেয়ে গাধার দু-দুটি পা বেশি, কানও অনেক বড়। সংখ্যা ও মাপে দুয়ের কাউকেও বড়-ছোট ভেবে নেওয়া হয় না। গাধার লেজ আছে, মানুষের নেই বলে মানুষ উন্নত, তা নয়। সৃষ্টির সময় সৃষ্টিকর্তা মানুষকে দিয়েছেন বেশি বেশি, সে জন্যই মানুষ বড়, উন্নত, সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ।সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ পরিচয় বিষয়ে মানুষ কি সচেতন! মানুষ কি গৌরব বা আনন্দবোধ করে সৃষ্টিকর্তার এমন মহান কৃপায়। কেউ করে, আবার কেউ করে না। যারা করে না, কেমন তারা? বোকা, গাধা, চালাক,

‘কারে আমি বাবা বলি, কে আমার প্রিয়তমা’

  

পিএনএস (কাজল ঘোষ) : ক’দিন ধরে তীব্র হতাশা ভর করেছে। চারপাশ ঘুমোট। চেনা মুখগুলো কেমন যেন অচেনা। জানা ঘটনাগুলোও অজানা। ভাবনার পারদ দুমড়ে-মুচড়ে ভেঙে যাচ্ছে। সম্পর্কগুলো বড্ড অবিশ্বাসী হয়ে উঠছে।তবে কি সব হিসাব চুকানোর সময় চলে এসেছে। চোখ বন্ধ থাকলেও নাকি প্রলয় বন্ধ থাকে না। সমসাময়িক দুটি ঘটনা। একটি রংপুরের অন্যটি হবিগঞ্জের।খুব কাছাকাছি সময়ে দুটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা খবর আমাদের ব্যাথিত করে। চিন্তিত করে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ সবখানে ঝড় তোলে। বিশেষ করে সবুজ জমিনে লাল রক্তাক্ত জামায় বিউটির ছবিটি

আর কত মৃত্যু হলে আমরা সতর্ক হব?

  

পিএনএস (শিশির ভট্টাচার্য্য) : গত ২৪ মার্চ ২০১৮ তারিখ মধ্যরাতে ময়মনসিংহের ভালুকার মাস্টারবাড়ি এলাকার এক নবনির্মিত বহুতল ভবনের তৃতীয় তলার একটি ফ্ল্যাটে বিস্ফোরণ ঘটেছিল। একজন অকুস্থলে নিহত, বাকি চারজনের মৃত্যু হলো হাসপাতালে। হতভাগ্যরা সবাই খুলনা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী। তাঁরা ভালুকায় স্কয়ারের একটি কারখানায় ইন্টার্নি করতে এসেছিলেন।বিস্ফোরণস্থলে গিয়ে দেখা গেল, ছয়তলা ভবনের প্রতিটি কক্ষের জানালার কাচ চুরমার। বিস্ফোরণ যেখানে হয়েছে, সেই ফ্ল্যাটের ড্রয়িংরুমের একাধিক দেয়াল

Developed by Diligent InfoTech