ব্রয়লারের নতুন দুটি জাত উদ্ভাবন

  



পিএনএস ডেস্ক: প্রতিবছর ব্রয়লারের প্যারেন্ট মুরগি আমদানি করতে ব্যয় হয় প্রায় ৯০ কোটি টাকা। এখন আর ওই প্যারেন্ট মুরগি আমদানি করতে হবে না।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) গবেষকরা দেশি মুরগি জার্মপ্লাজম ব্যবহার করে সফলতা পেয়েছেন। উৎপন্ন এই জাতের মুরগির স্বাদ হবে দেশি মুরগির মতই।

বাউ-ব্রো হোয়াইট ও বাউ-ব্রো কালার নামে এ দুটি মুরগির জাত উদ্ভাবন করেছেন অধ্যাপক ড. আশরাফ আলী ও সহযোগী অধ্যাপক ড. বজলুর রহমান মোল্যা। রোববার পশুপালন অনুষদের ডিন সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক কর্মশালা ও মতবিনিময় সভায় এসব তথ্য জানানো হয়।

পশুপালন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. আশরাফ আলী সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কৃষি গবেষণা ফাউন্ডেশনের প্রোগ্রাম ডাইরেক্টর (মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ) ড. কাজী এম. কমরউদ্দিন ও বাউরেসের পরিচালক অধ্যাপক ড. এম. এ. এম. ইয়াহিয়া খন্দকার।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর বলেন, বর্তমান বাজারের ব্রয়লারের মুরগির স্বাদ কম হওয়ায় অনেকেই খেতে চায় না। মাংস নরম হওয়ায় রান্নায় সমস্যা হয়। মাংস শক্ত ও স্বাদ দেশি মুরগির মত হওয়ায় এটা অনেকেই খেতে পছন্দ করবেন। এটি যদি সরকারের নীতি নির্ধারকরা মাঠ পর্যায়ে সম্প্রসারণ করেন তাহলে অনেকের কর্মসংস্থান হবে। দেশের আমিষের চাহিদা পূরণ হবে।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech